Monday, October 26, 2020

বগুড়ায় ৬০০ টাকার গ্যাস সিলিন্ডার বিক্রি হচ্ছে ৭৫০ টাকায়

জনপ্রিয়

সন্তানের পিতৃ পরিচয়ের দাবীতে দারে দারে ঘুরছে অন্তঃসত্তা তানিয়া

তার প্রশ্ন আমি এখন কী করব, আমি কি সন্তানের বাবার পরিচয় দিতে পারব না...

কোচিংয়ে আটকে রেখে ছাত্রীকে শিক্ষকের ধর্ষণ

সন্তান প্রসবের পর তাকে বিয়ে করতে অস্বীকৃতি জানায় তারেক ও তার পরিবার

তরুণীকে অপহরণ করে রাতভর গণধর্ষণের অভিযোগ

ঐ পাঁচজন স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতার কাছের লোক বলে জানিয়েছে মেয়েটি...

ফুডপান্ডার মাধ্যমে কী খাচ্ছেন বাংলাদেশের অভিজাত পরিবারের সদস্যরা?

তবে আন্তর্জাতিক খাবার সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান ফুডপান্ডা ফুটপাতের দোকানের সাথে চুক্তি করে অস্বাস্থ্যকর খাবার পৌঁছে দেওয়ার বিষয়ে কোনো বক্তব্য দিতে নারাজ।

মাসুম হোসেন

বাজারে সরকারি এলপিজি (লিকুইফাইড পেট্রোলিয়াম গ্যাস) সিলিন্ডার প্রতি দাম কমিয়ে গ্রাহক পর্যায়ে ৬০০ টাকা করেছে রাষ্ট্রীয় প্রতিষ্ঠান বাংলাদেশ পেট্রোলিয়াম করপোরেশন (বিপিসি)। সরকারিভাবে দাম কমলেও বগুড়ায় নিয়ন্ত্রণ ছাড়াই চলছে এলপিজি বাজার। বাজারে কোনো নিয়ন্ত্রণ নেই। ব্যবসায়ীরা ইচ্ছে মতো দামে বিক্রি করছে সরকারি গ্যাসের সিলিন্ডার।

বগুড়ার জাতীয় ভোক্তা অধিকার সরক্ষণ অধিদপ্তর বলছে, সরকারি এলপিজি সিলিন্ডার কোনোভাবেই নির্ধারিত মূল্যের চাইতে বেশি দামে বিক্রি করা যাবে না। গ্রাহক পর্যায়ে এই সিলিন্ডারের দাম নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। তবে বাজার ঘুরে দেখা গেছে, বগুড়ায় কোথাও সরকার নির্ধারিত দামে গ্যাস বিক্রি হচ্ছে না।

গত জুলাই মাসের শেষের দিকে এলপি গ্যাস সিলিন্ডারের (১২ কেজি) দাম কমানো হয়। তবে দাম কমেছে কাগজে-কলমে। বঞ্চিত হচ্ছেন গ্রাহকেরা। বগুড়ায় এখন সরকারি গ্যাসের ১২ কেজির সিলিন্ডার ৭৫০ টাকায় কিনতে বাধ্য হচ্ছেন ক্রেতারা। বেসরকারি কোম্পানির এলপি গ্যাসের ১২ কেজির সিলিন্ডারও গ্রাহক পর্যায়ে বিক্রি হচ্ছে সাড়ে ৭৫০ থেকে ৭৬০ টাকায়।

গ্রাহকদের অভিযোগ, সরকার এলপিজি সিলিন্ডারের দাম কমালেও সেই দামে তারা কিনতে পারছেন না। সরকারি এলপি গ্যাস সিলিন্ডার ৭৫০ টাকায় কিনতে হচ্ছে। এসব নৈরাজ্য দেখার কেউ নেই।

বাংলাদেশ এলপি গ্যাস সোসাইটি সূত্রে জানা গেছে, এলপি গ্যাস বিক্রির জন্য বগুড়ায় প্রায় ২০০ লাইসেন্সধারী ডিলার রয়েছেন। প্রতিমাসে একজন ডিলার ১০টি করে সরকারি এলপি গ্যাস সিলিন্ডার পান। গত ৬ মাসে পদ্মা ও যমুনা কোম্পানি বগুড়াতে কোনো সিলিন্ডার সরবরাহ করেনি। শুধু মেঘনা থেকে ব্যবসায়ীদের সিলিন্ডার দেওয়া হয়েছে।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, দেশে প্রাকৃতিক গ্যাসের মজুত শেষ হয়ে আসছে। এ কারণে কয়েক বছর ধরে আবাসিক গ্রাহকদের নতুন গ্যাস সংযোগ দিচ্ছে না সরকার। আবার যাদের সংযোগ আছে তারাও নিরবচ্ছিন্ন গ্যাস পাচ্ছেন না। এসব কারণে প্রতিদিনের রান্না মেটাতে লিকুইফাইড পেট্রোলিয়াম গ্যাসের (এলপিজি) চাহিদা দিন দিন বেড়েই চলেছে।

বগুড়া শহরের ফুলতলা এলাকার বাসিন্দা মো. সাজু প্রামাণিকের বাড়িতে প্রতিমাসে রান্নার জন্য একটি করে সিলিন্ডার প্রয়োজন হয়। তিনি বলেন, বগুড়ায় সরকার নির্ধারিত দামে কোনো সিলিন্ডার পাওয়া যায় না। ব্যবসায়ীদের সিন্ডিকেটের কাছে অসহায় ক্রেতারা। অথচ এদিকে সংশ্লিষ্ট কেউ নজর দেয় না।

বগুড়ার জলেশ্বরতলীয় বসবাস করেন জাহিদুল ইসলাম। গত সপ্তাহে গ্যাস কিনতে গিয়েছিলেন। তবে সরকার নির্ধারিত দামে পাননি। এ নিয়ে ব্যবসায়ীর সঙ্গে বাগবিতণ্ডায়ও জাড়ান তিনি। জাহিদুল ইসলাম বলেন, ‘দেশের কোনো কিছুই দুর্নীতির বাহিরে চলছে না। বগুড়ায় সিন্ডিকেট করে ব্যবসায়ীরা ৬০০ টাকার গ্যাস সিলিন্ডার ৭৫০ টাকায় বিক্রি করছেন। কোনো ক্রেতা প্রতিবাদ করলেই তাদের সাথে ঝামেলা হচ্ছে।’ গত ৩ দিনে বগুড়ায় এমন ২০ জন ক্রেতার সাথে কথা বলে গ্যাসের দাম নিয়ে একই তথ্য পাওয়া গেছে।

সরকার নির্ধারিত মূল্যের চেয়ে সিলিন্ডারের দাম বেশি নেওয়ার কথা স্বীকারও করছেন ব্যবসায়ীরা। বগুড়ার অন্তত ১০ জন ক্ষুদ্র ডিলার বলেন, সিরাজগঞ্জের বাঘাবাড়ি ডিপো থেকে চাহিদা অনুযায়ী তাদেরকে সরকারি এলপিজি সিলিন্ডার সরবরাহ করা হচ্ছে না। এ কারণে সরকারি এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডার জেলা পর্যায়ের ডিলারদের কাছ থেকে কিনতে হচ্ছে ৭০০ থেকে ৭২০ টাকায়। এরপর রয়েছে পরিবহন খরচ ও দোকানভাড়া। সব মিলে সিলিন্ডারের দাম কমলেও তারা নির্ধারিত মূল্যে বিক্রি করতে পারছেন না।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বগুড়া শহরের এক ব্যবসায়ী জানান, ‘প্রায় প্রতিটি জেলায় মুনাফালোভী ব্যবসায়ীদের রয়েছে। এই সিন্ডিকিটের মাধ্যমে গ্যাসের বাজার নিয়ন্ত্রণ হয়। এই সিন্ডিকেটে যোগসাজস রয়েছে কিছু সরকারি কর্মকর্তার। এ কারণে নৈরাজ্য করতে সাহস পান ব্যবসায়ীরা।’

বগুড়া শহরের গোহাইল রোডের খান্দার এলাকায় এলপি গ্যাসের ডিলার ‘কেয়া এন্টারপ্রাইজ’। কথা হয় এই প্রতিষ্ঠানের স্বত্বাধীকার মো. বজলুর সঙ্গে। তিনি জানান, ‘আমরা সরকারি এলপিজি গ্যাসের সিলিন্ডার বিপিসির নির্ধারিত মূল্য ৬০০ টাকা করেই বিক্রি করি। অতিরিক্ত দামে আমরা বিক্রি করি না। আর বেসরকারি এলপি গ্যাস সিলিন্ডারগুলো ৭৫০ টাকায় বিক্রি করছি বর্তমানে। আমাদের বিরুদ্ধে বেশি দাম রাখার অভিযোগটা ভিত্ত্বিহীন।’

গত এক সপ্তাহ তার প্রতিষ্ঠান এলাকায় কয়েকজন ক্ষুদ্র ডিলারের সঙ্গে কথা হয়। তারা বলেন, ‘কেয়া এন্টারপ্রাইজ আমাদের কাছে ৭০০ থেকে ৭২০ টাকা দামে সরকারি সিলিন্ডার বিক্রি করে।’

শহরের কলোনী এলাকার এলপিজি গ্যাসের ডিলার মুরাদ নামের এক ব্যক্তি। তার প্রতিষ্ঠানের নাম ‘মালিহা এন্টারপ্রাইজ’। এই প্রতিষ্ঠানেও এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডারের অতিরিক্ত দাম নেওয়া হচ্ছে।

জানতে চাইলে মুরাদ বলেন, ‘বাঘাবাড়ি ডিপো থেকে এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডার নিয়ে আসতে সিলিন্ডার প্রতি আমাদের ৫০ থেকে ৬০ টাকা খরচ হয়। অন্যদিকে গ্যাসের দাম নির্ধারণ করা হয়েছে ৬০০ টাকা। জেলা প্রশাসক আমাদের ডেকে সরকারি এলপিজি সিলিন্ডার ৬০০ টাকা করে বিক্রি করতে বলেছেন। কিন্তু নির্ধারিত দামে সিলিন্ডার বিক্রি করা সম্ভব না। আর বেসরকারি সিলিন্ডারগুলো ৭৫০ টাকায় বিক্রি করছি।’

বগুড়ার উপশহর এলাকায় আসলাম এন্টারপ্রাইজ, শহরের বউ বাজারের সিয়াম এন্টারপ্রাইজেও একই দামে সরকারি গ্যাস বিক্রি হচ্ছে।

বাংলাদেশ এলপি গ্যাস সোসাইটি কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি মঞ্জুরুল হক মঞ্জু বলেন, ‘একটি সরকারি এলপিজি সিলিন্ডার বাঘাবাড়ি ডিপো থেকে বগুড়ায় নিয়ে আসতে খরচ হয় ৬০ টাকা। ডিপো থেকে কিনতে হয় ৫৭৫ টাকায়। আর আমাদের বিক্রি করতে বলা হয়েছে ৬০০ টাকায়। এভাবে দাম নির্ধারণের করায় ব্যবসায়ীরাও বিপাকে পড়েছেন। আমরা যদি নির্ধারিত মূল্যেই একটি সিলিন্ডার বিক্রি করি; তাহলে আমাদের পথে বসতে হবে।’

এসব বিষয়ে জানতে চাইলে বগুড়ার জাতীয় ভোক্তা অধিকার সংরক্ষণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক দেবাশীষ রায় জয়যুগান্তরকে বলেন, ‘সরকারি এলপিজি গ্যাস সিলিন্ডারের দাম নির্ধারণ করে দেওয়া হয়েছে। অতিরিক্ত দাম নেওয়া আইনগত অপরাধ। আমরা খোঁজ-খবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিব।’

গ্যাসের দাম নৈরাজ্যে বিষয়ে বগুড়ার জেলা প্রশাসক মো. জিয়াউল হক মোবাইলে জয়যুগান্তরকে বলেন, ‘এসব বিষয়ে খোঁজ-খবর নেওয়া হচ্ছে। এরপর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।’

- Advertisement -

আরও খবর

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here

- Advertisement -

সর্বশেষ

সাভার থানার ওসিসহ ৮ জনের বিরুদ্ধে মামলা

ওইদিন একই আদালত মামলাটি ঢাকা জেলার অতিরিক্ত পুলিশ সুপারকে তদন্তের নির্দেশ দিয়েছেন...

স্কুলছাত্রীকে বিয়ের প্রলোভনে ধর্ষণ করলো কিশোর!

মামলা হওয়ার পরে আটক কিশোরকে গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে পাঠানো হয়েছে...

বগুড়ায় পুলিশ পরিচয়ে বিয়ে করতে এসে কারাগারে গেল বর

কিন্তু তাদের প্রতারণা ফাঁস হয়ে যাওযায় শনিবার রাতেই পুলিশ তাদের গ্রেপ্তার করে...

বগুড়ায় বিএনপির কর্মি সভা

আসন্ন বগুড়া পৌরসভা নির্বাচন উপলক্ষে ১৮ নম্বর ওয়ার্ডে বিএনপির এক কর্মি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে...

নাস্তা নিয়ে অপেক্ষায় মা, ফিরলো শিশুর নিথর দেহ

অচেতন অবস্থায় শিশুটিকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পথেই তার মৃত্যু হয়...